Posted in কিভাবে কিভাবে যেন লিখে ফেললাম, ভালো লাগা, ভালোবাসা

ভালোবাসা দিবসের অনুকাব্য


প্রতিটা ফাল্গুনের দ্বিতীয় দিনে আমি বেশ মজা নিয়ে দুটো একটা অনুকাব্য লিখি। মাঝে মাঝে সেটার প্রকাশও করি। কিন্তু এবারে এই ফাল্গুন আমার কাছে ধরা দিলো নোংরামোর মাত্রাতিরিক্ত বিজ্ঞাপন নিয়ে। দেশের প্রায় প্রতিটা জনপ্রিয় জাতীয় দৈনিক পত্রিকার কমপক্ষে দুটো পৃষ্টায়, এক-চতুর্থাংশই জুড়ে ছিলো নানান রকমের “নিরাপত্তা টুপি” বিক্রেতার বাহারি বিজ্ঞাপন।

ভালোবাসা’য় ভালো”বাঁশ” দেখতে পেয়ে মনটা যেভাবে বিক্ষিপ্ত হয়েছে তাতে করে এর চাইতে ভালো লেখা আর হয়ে উঠলো না কোনমতেই। আমি আন্তরিকভাবেই দুঃখিত পাঠকবৃন্দ, ক্ষমা করবেন!! 😦

পত্রিকার পাতায়, খোমাখাতায়
যত্রতত্র আজ “টুপি” সংক্রান্ত বিজ্ঞাপন
ভালোবাসা দিবসে
এ কি! আলাপন! মন উচাটন, টনটন টনটন!!

ভালোবাসার নামে হতে কোরবানী
প্রচারের আলোয় যত্ত ভন্ডামি
নিরাপদে রাখতে ভালো”বাঁশ”
“ভালোবাসা”য় হাঁসফাঁস।।

দুপ্লেট ফুচকাতে আর গলে নাকো মন
মনের চাহিদা আজ দেহবল্লরীর গুঞ্জন
আরো চাই, বেশী চাই
ছাইপাশ যাই পাই
ব্যাডলাকে ফেঁসে গেলে
— “ওটা আমি চাই নাই” 😦

ইতস্তত ইতরামো,
সীমিত ছিলো স্বপ্নে।
দিবালোকে সর্বত্র আজ
নিরাপদ পূরনে।
সোৎসাহে হরদম, ন্যাকামোর হরিবোল
ঝরা লালা মুখে টেনে, মনেতে শোরগোল।

অযাচিত প্রচারের
ভালোবাসা “ভালোবাঁশ”।
নিয়ো নাকো সখা মোর
অকালেই “সর্বনাশ”।

বাঁশ ঝাড় যারই থাক
তুই কেন নিবি বল?
হারিয়ে কুল মান
অকারন গরলপান!

জাতি হিসেবে উচ্চশির
যতটাই উঠছি
নৈতিকতা ঝেড়ে ফেলে
সবটুকুই হারাচ্ছি।

Advertisements