Posted in খেয়াল করুন, জেনে রাখুন, দেশ ও জাতির প্রতি দ্বায়বদ্ধতা, প্রযুক্তি নিয়ে আউলা চিন্তা, ভালো লাগা, ভালোবাসা

“পেঙ্গুইন মেলা – ২০১১” ঢাকা বিভাগের আয়োজন

এই অনুষ্ঠান কি আপনার জন্য?

পাঠকের কাছে ১০টি ব্যক্তিগত প্রশ্ন:

১. আপনি কি দেশপ্রমিক? দেশের প্রতি আপনার ভালোবাসা কি ‘মা’ কে ভালোবাসার মতো?
২. দূর্নীতিতে দেশের মান সম্মান মাটিতে গড়াগড়ি খাচ্ছে দেখে আপনি কি চিন্তিত হন? এর প্রতিকারে নিজের করণীয় সম্পর্কে ভাবেন?
৩. আপনি কি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল? সচরাচর আইন অমান্য করেন না কিংবা করতে চান না?
৪. আপনি কি কম্পিউটারে ভাইরাসের জ্বালা-যন্ত্রনায় অতিষ্ট? এ যন্ত্রনা থেকে মুক্তির পথ খুঁজছেন?
৫. আপনি কি কম্পিউটারে আপনার মূল্যবান তথ্যের নিরাপত্তা নিয়ে চিন্তিত?
৬. আপনি কি হালকা পাতলা বুদ্ধিবৃত্তিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করার সামর্থ্য রাখেন এবং তা উপভোগ করেন?
৭. আপনি কি নতুন নতুন কম্পিউটার প্রোগ্রাম নিয়ে গবেষনা করতে পছন্দ করেন?
৮. আপনি কি ইন্টারনেটে বিচরন করার সময়ে ভাইরাস ও ম্যালওয়্যারজনিত নিরাপত্তাহীনতায় ভোগেন?
৯. আপনি কি দামী সব সফটওয়্যারের ফ্রী/উন্মুক্ত বিকল্প খুঁজছেন?
১০. আপনি কি জনসাধারনের/সাধারন কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের সেবা করতে আগ্রহী?

প্রিয় ভাই/বোন, উপরের এই প্রশ্নগুলোর উত্তর লিখে কোন ঠিকানায় গোপনে পোস্ট করতে হবে না। শুধুমাত্র যদি কোন প্রশ্নের উত্তর আপনার মন থেকেই ‘হ্যাঁ’ বোধক হয় তাহলে এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে আপনি নিশ্চিতভাবেই কিছুটা উপকৃত হবেন। আর তা না হলে এই প্রশ্নপত্র পড়িয়ে আপনার মূল্যবান সময় নষ্ট করার জন্য আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি।

এবার তাহলে জেনে নিন অনুষ্ঠানের বিস্তারিতঃ–

তারিখ: ৮ই এপ্রিল ২০১১ইং, রোজ শুক্রবার

সময়: বিকাল ৩টা থেকে ৭টা

স্থান: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরসি মজুমদার মিলনায়তন
(শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত; অপরাজেয় বাংলার পেছনে কলা ভবন, তার পেছনে লেকচার থিয়েটার ভবন, ঐ ভবনটির নিচতলাতেই)

প্রবেশ মূল্য: ২০ টাকা।

অনুষ্ঠানসূচী:
# লিনাক্স ও ওপেন সোর্স বিষয়ে মুক্ত আলোচনা। — ২৫ মিনিট
# পাইরেসী প্রতিরোধে লিনাক্স ও ওপেন সোর্স এর ভূমিকা — ২৫ মিনিট
# লিনাক্স ও ওপেন সোর্স সফটওয়্যার ব্যবহারের সুবিধা — ২৫ মিনিট
# অতিথি ও অংশগ্রহনকারীদের আপ্যায়ন পর্ব — ৪০ মিনিট
# অতিথি ও অংশগ্রহনকারীদের সমন্বিত আলোচনা ও মতামত বিনিময় — ১২০ মিনিট

আরও থাকছে:
ফাউন্ডেশন ফর ওপেন সোর্স সলিউশনস বাংলাদেশ (FOSS Bangladesh) কর্তৃক সংকলিত/কাস্টমাইজ করা লিনাক্স মিন্ট ১০ জুলিয়া’র ডিভিডি (৫০ টাকা)। কাস্টমাইজড ডিভিডিটাতে এবারে পাসওয়ার্ড জনিত ঝামেলা দূরীভূত করা হয়েছে। তদুপরি কাস্টম ডিস্ট্রোটিতে এবারে থাকছে বেশ কিছু ওপেনসোর্স ও ফ্রী থ্রিডি গেমস যেমন এলিয়েন এরেনা, নেক্সুইজ, ব্যাটেল ফর ওয়েসনর্থ এবং অ্যাসল্টকিউব ইত্যাদি।

বাংলাদেশের সকল লিনাক্সপ্রেমী/আগ্রহীদের জন্য এটা একটা উন্মুক্ত আয়োজন। তাই সকলের অংশগ্রহন ও সহযোগীতা প্রত্যাশা করছি।

আয়োজনে: ফাউন্ডেশন ফর ওপেন সোর্স সলিউশনস বাংলাদেশ (FOSS Bangladesh) – একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন।

আয়োজনে অংশগ্রহনে আগ্রহী হলে এখানে কিছু তথ্য প্রদানের মাধ্যমে অায়োজকদের সহযোগীতা করুন।

যেসব ব্লগ ও ফোরামে এই আয়োজনের সংবাদ পাবেন — শামীম ভাইয়ের ব্যক্তিগত ব্লগ (খিচুড়ী ব্লগ), প্রজন্ম ফোরাম , আমাদের প্রযুক্তি, টেকটিউনস, আড্ডার আসর, আইটেক বাংলা, এবং ডিজিটাল দুনিয়া

আপডেট: আয়োজনের কিছু ছবি

Advertisements
Posted in খেয়াল করুন, জেনে রাখুন, দেশ ও জাতির প্রতি দ্বায়বদ্ধতা

অবান্তর প্রশ্নমালা আর এক ‘ভাবুক প্রশ্নকর্তা’


কিছুদিন আগে আমার বিরুদ্ধে খুব খারাপ ধরণের কিছু অভিযোগ করা হয়েছিলো একটা ব্লগে। ঐ ভুলে ভরা অভিযোগগুলো দেখে আমি অবাক হয়ে গিয়েছিলাম। তবে যেহেতু আমি আর অভিযোগকারী ব্যক্তিগত ভাবে পরিচিত তাই এটাকে ওনার বয়সজনিত উত্তেজনা হিসেবেই নিয়েছিলাম – এবং উত্তর দেইনি, কারণ আমাকে নিয়ে মজা করার জন্য দিয়েছে – মজা করুক। কিন্তু পরবর্তীতে ঐ পোস্টটিকে এর অনেক পাঠকই গুরুত্ব সহকারে নেয়, যা বিরাট ভুল বোঝাবুঝির দিকে নিয়ে গেছে অনেককেই। তাই অভিযোগকারীর প্রতি কোনরকম বিরূপ মনোভাব পোষন না করে শুধুমাত্র এ জনিত সেই ভুল বোঝাবুঝি যেন না থাকে সেজন্য এই পোস্টটি লেখা হল। মূল পোস্টটি ইংরেজিতে, আমার লেখা বাংলায়। ধারাবাহিকভাবে পুরা অভিযোগের উত্তর দেয়া হয়েছে এখানে।

The scattered FOSS and one lord of the RING
I ain’t dramatizing the title. Rather I’m speaking the very fact. Let’s head into the story of RING. By the way, This is nothing official. I am not writing on behalf of Linux Mint Bangladesh. This is insanely personal. I’m PISSED at lousy person like him.

Here ring is not any “thing”. It’s a “he”. Talking about Mr. Sajedur Rahim Joardar (Rinku). He was no one in BD FOSS community till late 2009.


পোস্টকারী যখন লিনাক্স ব্যবহার শুরু করে তখন থেকেই বাংলাদেশে এফওএসএস আন্দোলনের যুগের সূচনাকাল হিসেব ধরে নিয়ে শুরু করে দিয়েছেন। কৌতুহলী সত্যসন্ধানী কেউ একটু কষ্ট করে লঞ্চপ্যাডে খুঁজে দেখলেই বুঝে যাবেন কে কবে কখন থেকে এফওএসএস এর সাথে পথ চলছে। আশা করছি লঞ্চপ্যাড কি, সেটা বিজ্ঞ পাঠক জানেন।

Then one day he emerged out of nowhere, and with his speech skill, he convinced almost everyone to follow his “dream” and soon became one of the topmost figure of BD FOSS movement.

Bd FOSS movement consists of 4 team mainly. Ubuntu BD (Lead by Shabab Mustafa and Shahriar Tariq), Linuxmint-BD (Lead by Ayon Khan), Fedora BD (Lead by Moniruzzaman Monir) and Opensuse BD (Lead by Sarim Khan & Rashedul Kabir). He made the right choice by sneaking into the Ubuntu BD and Linuxmint BD only to fulfil his wretched “dream”.


উবুন্টু বিডি এবং লিনাক্স মিন্ট বিডি তে আমি সদস্য মাত্র। এটা যে কেউ ব্যবহার সুত্রে হতে পারে এবং এজন্য বিশেষ কোন যোগ্যতার দরকার পড়ে না শুধুমাত্র একজন লিনাক্স মিন্ট কিংবা উবুন্টু ব্যবহারকারী হলেই হয়।

He made people dream about Linux. He made people think that they got an angel who can convert Bangladesh into one of the topmost Linux user countries of the world. He told people about organizing events nationwide. He made them think that the way he is describing is the right way. That is the way one should preach Linux. Anyway, for over an year or so, he was just theorizing his “dream” to whom he thought to be needed on his way up. He got involved into Linux Mint BD convincing the team leader to arrange a poll regarding his inclusion. I, despite voting against it, lost the poll to 4:1. He made them understand that the coordination of him is a dying need in the time of crisis.


এই মন্তব্য থেকে মনে হচ্ছে যে আপনি নিজেকে লিনাক্স মিন্ট বাংলাদেশ এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্যদের মধ্যে সবচেযে বুদ্ধিমান দাবী করছেন। আর বাকী সবাই বোকা, তাই উল্টা ভোট দিয়েছেন?

Previously Amader Projukti was the ground of all Brainstorming and stuffs about Linux. Due to some mishandling and some lack of care, it soon became kinda dead. Then emerged the cursed and crooked Linux Forum. Mr. RJ and Mr. Angel reigned there and people got scattered for the second time due to their dictatorship. Baseless, lost and forbidden from Linux Forum, those users scattered in the net like a ship without a radar. And here comes the greatest criminal mind of virtual world, Mr. Ring.


পোস্টকারী আপনি ভুলে যাচ্ছেন ওই লিনাক্স ফোরামে যাঁদের পাশে দাঁড়িয়েছিলাম তাঁরা সবাই ফোরামে সদস্য রয়েই গেছে, আমি আর অনুপ ই শুধু ‘ব্যান’ হয়েছি।

He convinced Ayon Khan that the users need to be taken under a group and they need to be converted into Linux Mint. So he tried to run a nationwide campaign and formed “something” named FOSS BD and he was making people dream about it. Making people dream about a society where everyone is “ringed”.


আমার ধারণা অয়ন খান দুধের শিশু/কিংবা এমন কোন বে-খেয়ালি ব্যক্তিত্ব নয় যে, ওকে কোন কাজে যেনতেন একটা বুঝ দিয়েই যুক্ত করা যাবে – ওনাকে কি আপনার যথেষ্ট বুদ্ধিমান মনে হয় না? আর আপনি এত ভুল তথ্য নিয়ে কিভাবে একটা পোষ্ট পাবলিকলি দিতে পারলেন তা আপনিই জানেন। আপনি যেটাকে এফওএসএস বিডি বলছেন ওটা হবে এফওএসএস বাংলাদেশ। আগে তথ্য নির্ভুল ভাবে সংগ্রহ করে নেন তারপর না হয় প্রকাশ করার জন্য উন্মুখ হবেন। আর আমার কাজ সমন্ধে জানতে গুগলে আর পিকাসা ওয়েব অ্যালবামে ‘রিং’ লিখে সার্চ দিলেই হবে। লেখা আর ছবিগুলোই কথা বলবে।

By this time, he knew that me and few other people were sensing his treachery towards the community and he very cleverly tried to make us unaware of the existence of his so called “dreamland”. He was initiating events and distributing custom CD based on Linux Mint and Ubuntu on his own. The show begins now.


এই কাস্টমাইজড ডিস্ক ও তার সাথে ইনফোলেট তৈরীর প্রকল্পের সম্পূর্ন বিনিয়োগ (অনুদান) আমার করা এবং বাংলাদেশে লিনাক্সকে সংকলিত করে অফলাইনে ব্যবহার উপযোগী করা এবং সেগুলোকে টেকসই ও সহজলভ্য করার জন্য সিলভার ডিস্কে ম্যানুফ্যাকচারিং করার এই উদ্যোগ এটাই ছিলো প্রথম। এই উদ্যোগে আমায় সার্বিক সহযোগীতা করেছে শাবাব মুস্তাফা। আর এই প্রজেক্টে টাকাটা যেন বারংবার বিনিয়োগ করতে না হয় ঠিক সেইজন্যেই ডিভিডি গুলো বিনামূল্যের না করে মূল্য নির্ধারিত হয়েছিলো। এতে করে এই বিনিময়মূল্য দিয়েই পরবর্তীতে আবার সিডি/ডিভিডি প্রস্তুত করা যাবে এবং এটি একটি টেকসই পদ্ধতির মধ্যে আবর্তিত হবে। আর খুলনার আয়োজন তিনটার মধ্যে প্রথম দুটোয় কিন্তু আমি ডিভিডিগুলো বিনামূল্যেই বিতরন করে দিয়েছিলাম।

আর ডিভিডিগুলো তৈরীতে আমার খরচ ছিলো নিম্নরুপ:

উবুন্টুর কাস্টমাইজড ডিস্ক (১০০ পিস) – ৪৭০০ টাকা (ডিস্ক ৩২+ইনফোলেট ১২+পরিবহন ও প্যাকিং ৫টাকা)
লিনাক্স মিন্ট কাস্টমাইজড ডিস্ক (৩০০ পিস) – ১৪১০০ টাকা (ডিস্ক ৩২+ইনফোলেট ১২+পরিবহন ও প্যাকিং ৫টাকা)
——————————————————————————–
সর্বমোট – ১৮৮০০ টাকা

আর বিক্রয়ের হিসেব হলো:

উবুন্টুর কাস্টমাইজড ডিস্ক (১৭ পিস) – ১০২০ টাকা (প্রতিটি ৬০টাকা হারে)
লিনাক্স মিন্ট কাস্টমাইজড ডিস্ক (২১৩ পিস) – ১২৭৮০ টাকা (প্রতিটি ৬০টাকা হারে)
——————————————————————————–
সর্বমোট – ১৩৮০০ টাকা
অবিক্রিত ডিস্ক (উবুন্টু ৮৩ এবং মিন্ট ৮৭) – ৭৯৯০ টাকা (প্রতিটি ৪৭টাকা হারে)
অতএব মোট আয়কৃত অর্থ এই প্রকল্পে = (১৩৮০০ – ৭৯৯০) = ৫৮১০ টাকা

এ বিষয়ে আরো বিস্তারিত জানতে পারা যাবে এখানে, এখানে আর এখানে

এবার বলুন আপনি/উবুন্টু বাংলাদেশ/লিনাক্স মিন্ট বাংলাদেশ পরিবারের কে এই অর্থ আমার কাছ থেকে বুঝে নেবেন এবং আগামীতে এই প্রজেক্ট সকল দায় দেনা, অভিযোগ, সমাধানের জন্য ছুটে যাওয়া প্রভৃতি সহ আগামীতে এই প্রজেক্টকে অবিরত রাখবেন। আমি দায়িত্ববান যে কাউকেই এই প্রজেক্টের দায়িত্ব বুঝিয়ে দিতে রাজী আছি।

He went To Jahangirnagar University on the eve of Eid-Ul-Fitr and tried to setup the server with Ubuntu and charged 20k for that. ………………………………………………..


তথ্যটা যে বিশ্বস্ত সুত্র আপনাকে দিয়েছিলো তাঁর তথ্যে যথেষ্ট ভুল ছিলো। কেননা আপনার এই কথা লেখার পরপরই যথাযথ কর্তৃপক্ষই আপনার লেখায় কমেন্টে বলে দিয়েছে যে, টাকার অংকটা ছিলো ছয় হাজার, বিশ হাজার নয়।

There, Shabab vai setup the client PC and that RING, tried to setup the servers only to increase the hassle. First time he made the authority to change the router then he tried configure it again only to fail. Nevertheless, he charged the authority with 7k only for the client pc and he did not notify Shabab vai about it. He came to know that much later.


আমি কাজটার সম্পূর্ন সফল ইতি টানতে পারিনি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সাথে আইনি জটিলতায়। ওনারা আমার সাথে এমওইউ (চুক্তিনামা) না করেই কাজটা সম্পন্ন করাতে চাইছিলেন। আমি সেটা করতে পারিনা নৈতিক এবং আইনানুগ ভাবে। কেননা ওনারা যখন একটা সার্ভারের কথা বলে দুটো সার্ভার কনফিগার করাতে চাইলেন, একটা ল্যাবের কথা বলে দুটো ল্যাব কনফিগার করানোর প্রয়াস নিলেন এবং নিজেদের ব্যক্তিগত পিসি, অফিস পিসি এবং ল্যাপটপ কনফিগার করিয়ে নিলেন তখনই আমি এমওইউ স্বাক্ষরের আগে সার্ভারের কাজে হাত দোবনা স্পষ্টই জানিয়ে দিই। পরে ওনারা আমার সাথে আর কাজ করবেন না বলে জানিয়ে দিলে ওই প্রজেক্টে আমাকে ক্লায়েন্টগুলো কনফিগার বাবদ ছয় হাজার টাকা দেন এবং সেটা আমি একটা বিল দিয়েই নিই কোনরূপ অনুদান কিংবা অবৈধ লেনদেন করে নয়। প্রাথমিক কথাবার্তা থেকে শুরু করে শেষ পর্যন্ত কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগের মাধ্যম ছিলাম আমি এবং দ্বায়িত্ব আমিই বহন করেছি। কাউকে এর মাঝে সামান্য দূর্নাম কিংবা আইনানুগ জটিলতায় জড়াইনি। আর এই প্রজেক্টে কোথাও উবুন্টু বাংলাদেশে কিংবা লিনাক্স মিন্ট বাংলাদেশ এর নাম ভাঙ্গানো হয়নি, কেননা এটা ছিলো ব্যক্তিগত সম্পর্কের সুত্র ধরে করা প্রাতিষ্ঠানিক অনানুষ্ঠানিক (যেহেতু এমওইউ নাই) কাজ।

Mr. Ring arranged events in Chittagong, Rajshahi and some other places in Dhaka. For all those works he took donation from individual people and company but never bother submitting the cash invoice to the authority. Moreover he took people like ZM Mehedi Hasan and his sisters/relatives who do not have the slightest experience regarding Linux as “Linux specialist” :-/ to solve people’s problem. Actually they were just tool to consume and cover up the money he took as “donations”.


অনুদান নেবার বিষয়ে বলবো, আমি কারও কাছ থেকে কোন অনুদান নিয়ে কোথাও, কোন ইভেন্ট, কখনোই করিনি। প্রতিটা আয়োজনে স্থানীয় আয়োজকেরা অনুষ্ঠান স্থল ভাড়া থেকে শুরু করে ঢাকার অতিথিদের যাবার কিংবা আসার যে কোন এক পথ এর ভাড়া বহন করেছেন। আর বাদবাকীটা যেমন ব্যানার, থাকার ব্যবস্থা, খাওয়া ইত্যাদি সহ খরচগুলোর অধিকাংশেই আমি নিজের আয় থেকে অনুদান/ভর্তুকি দিয়েছি। সত্যানুসন্ধানে আপনি তো চট্টগ্রাম, রাজশাহী আর খুলনার আয়োজকদের সাথে কথা বলতেই পারেন এ বিষয়ে। প্রমান পেয়ে যাবেন আমার কথার স্বপক্ষে।

খুলনার আয়োজনে মাসনুন আমাকে বলেছিলো যে ও “লিভিও” থেকে অনুদান নিচ্ছে কেননা শেষ মুহুর্তে এসে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অডিটোরিয়াম হাতছাড়া হয়েছিলো মাসনুনের আর ওটার দ্বায়িত্ব যেহেতু ও নিযেছিলো তাই ও নিজেই অনুদানের বিষয়টা দেখেছে। আমাকে শুধু ও বলেছিলো যে ব্যানারে “লিভিও”র লোগো দিতে হবে। আমি ওঁর দেয়া লোগো দিয়েই ব্যানার করেছিলাম। প্রমাণ হিসেবে আয়োজনের ছবিগুলোই কথা বলবে। এছাড়া কোন রকম অনুদান আমার আর কোন অনুষ্ঠানে আমি নিইনি। চট্টগ্রামের আয়োজনের বিষয়টা পুরোটাই আহমেদ এর জানা। আমিই খরচ করেছি, না কি অনুদান নিয়েছি সেটা জানতে হলে অভি আদিত্য আর আহমেদ এর সাথে কথা বলে জেনে নিন।

প্রতিটা আয়োজনের প্রি-ইভেন্ট প্রেস রিলিজে স্পষ্টকরে লেখা ছিলো এবং থাকে যে ঢাকার থেকে বিশিষ্টজনেরা আসবেন। কোথাও লেখা থাকে না যে “লিনাক্স বিশেষজ্ঞ” কিংবা “অভিজ্ঞ লিনাক্স ব্যবহারকারী” আসবেন। আর আমি কাকে সাথে করে আয়োজনে নিয়ে যাবো কিংবা গিয়েছি সে বিষয়ে প্রশ্ন তোলাটা একটা ছেলেমানুষি ছাড়া আর কিছুই মনে হয়নি আমার কাছে। কেননা একমাত্র খুলনার এবারের আয়োজনে আমার সাথে আমার ছোট বোন ও ভাই গিয়েছিলো আর ওঁরা প্রথমে ব্যবহার করেছে রেডহ্যাট ৭.৩ তারপর উবুন্টু ৮.০৪ আর তারপর মিন্টের সাথে আছে ২০০৮ সাল থেকে। আর বাকী গুলোর মধ্যে রাজশাহীর টাতে প্রকৌশলী রায়হার চৌধুরী নিপুন, জীবন চৌধুরী এবং মেহেদী ভাই, চট্টগ্রামের টাতে আহমেদ জান্নাত, জীবন চৌধুরী আর মেহেদী ভাই আমার সাথে ছিলেন। প্রতিটা অনুষ্ঠানের ছবি পাওয়া যাবে শুধুমাত্র ‘রিং’ লিখে পিকাসা ওয়েব অ্যালবামে সার্চ দিলেই।

Then came the customized disk distribution. He tried to take sponsorship from Ankur Bangladesh and some individuals and basically sold the disks to his customers with 80tk each (There are various opinions regarding this. Some says it’s 90tk some says 60tk!). Then when asked, he said that he was just raising funds for Linux Mint Bangladesh. Who told him to?


কবে কখন কোথায় কার সাথে এই কথা বলেছি যে এই ডিভিডি প্রজেক্ট লিনাক্স মিন্ট বাংলাদেশ এর জন্য ফান্ড সংগ্রহের জন্য? যথাতথা যাচ্ছেতাই লেখাটা কি বালখিল্যতা নয়?

Ayon Khan? I bet he never did. He also convinced the CEO of one of the topmost disk manufacturing and labeling corporations in BD that all dealings regarding Ubuntu should pass through him. As he is some “special person” employed by Canonical (?). CANONICAL, MY FOOT! Ankur gave him notice of suing directly had he not withdrawn his statement as “special person”. He then acted like a true coward, saying it was only to ensure organization like ubuntu BD limited never emerges again.


অংকুরের মাহে আলম খান (ম্যাক) ভাইয়ের সাথে সরাসরি কথা বলে জেনে নেয়া যাবে আসল বিষয়টা কি? এই বিষয়ে ফালতু কথা বলার সময় কিংবা ইচ্ছে, অন্ততঃ আমার নাই।

He was using the name “Linux Mint Bangladesh” without permission and he never submitted a single copy of the customized CD to authority for checking.


অথচ অনুমতি ছাড়াই এমনি এমনি ঐ ডিস্ক লিনাক্স মিন্ট বাংলাদেশ এর সাইটের মাধ্যমে প্রচার আর প্রসার পেয়েছিলো। তাই না?

Calling almost everyone by name and asking people to call him on a public forum add spice toppings in his shitty character only. Besides, he does not have ANY sort of specialized Linux knowledge. Only one thing he knows is HAL. All his solution circles around installing HAL. lol. Bet he’s unaware of udev or editing fstab manually.


এটা সবচেয়ে মজার মন্তব্য। আমি যে প্রতিষ্ঠানে বর্তমানে চাকরী করি মানে শ্রম বেচি তাঁদের সাথে আমার কোনো আত্মীয়তার সম্পর্ক নাই (মামা, দুলাভাই ইত্যাদি), তবুও তাদের লিনাক্স সিস্টেমগুলো ও নেটওয়ার্ক সার্ভারগুলো সেটাপ ও কনফিগার করা আর সব সার্ভিস সময়মতো সেবা দেয়া ও নিশ্চিত করার জন্য আমাকে বসিয়ে বসিয়েই পয়সা দিচ্ছে। তাহলে তাঁরা আপনার কথামতো মাথামোটা এবং এখনও না হয়ে থাকলে আপনার কথার সূত্র অনুযায়ী তাদের ব্যবসার ভরাডুবিই হবে।

But this is not all. So far the greatest and most successful event in the linux movement of Bangladesh has been “Buntu-Mintur Adda” which was the idea of Shabab Mustafa and the effort of everyone. It was an example of coordination among the 2 main Loco team of linux in BD. He recently demanded that he organized it all and Shabab Mustafa was his assistant. How pathetic.


কবে কোথায় দাবীটা করেছি বলতে পারেন? ওই আড্ডায় আমার ভূমিকা কি ছিলো তা প্রথম আলো দৈনিকের ২০১০এর ৬ই আগষ্টের ৩৬ পৃষ্টাতেই পাবেন।

What’s next, Mr. Sajedur Rahim Joardar? Forming another group and muting anyone who oppose? Or starting project like this again with people who don’t have a clue what you are talking about?


আমি কাউকে বাকরুদ্ধ করে দেই নাই, দেবো না, দেবার প্রয়াসের চিন্তাটুকুও করতে পারি না। বাকস্বাধীনতার জন্যেই মঞ্চ নাটক, পথ নাটক করি আর উন্মুক্ত সফটওয়্যারের জন্য আন্দোলন করি, করেছি, করবো। আর আমার বাকস্বাধীনতায় যেন অন্যের অধিকার ক্ষুন্ন না হয় সেটাও লক্ষ্য রেখেই পথ চলেছি আর চলবো। ভুলে ভরা এ অভিযোগগুলো সময়ের স্রোতেই সব সত্য প্রকাশিত করে কালের গর্ভে বিলীন হবেই, প্রমান করবেই যে, আমি নিষ্কলুষ ছিলাম ও আছি। চেষ্টা করবো আমরন এ নিষ্কলুষতা বজায় রাখতে।

আর আমার জানা আছে, সোনার উপরে যতই আলগা পাথর লাগানো হউক সোনা সোনাই, পাথর হবে না। আর এক রত্তি সোনার দাম সব সময়েই এক বিশাল পাথরের চাইতে দামীই রবে।

Posted in কিভাবে কিভাবে যেন লিখে ফেললাম

একুশ শতকে …….


একুশ শতকে বাড়ির ফটকে
ঝুলবে না আর তালা
সেথায় তখন দেখা যাবে
যন্ত্র, রিমোটওয়ালা।

থাকবে নাকো রিক্সা আর
থাকবে নাকো বেবী ট্যাক্সি
লোকে শুধুই চড়বে প্লেনে
চড়বে নাকো ‘Maxi’।

লোকে তখন থাকবে চাঁদে
বাড়ি বানাবে মঙ্গলে
ভালোমতো বলবে না কথা
হাসবে নাকো প্রাণ খুলে

সবাই রবে ব্যস্ত, কাজে
হবে না কোন গোলমাল
ছকে বাঁধা জীবনে সবার
যোগ হবে না নতুন ‘চাল’।

এত সুন্দর মানুষগুলো সব
হয়ে যাবে যন্ত্র
ফেরানো আর যাবে না তাঁদের
দিয়েও হাজার মন্ত্র।

দেখা হলেও কেউ কাউকে
পারবে না আর চিনতে
টাকার জোরে মানুষ চাইবে
মহাবিশ্বটাই কিনতে।

সবাই যে হায় বলবে কথা
শব্দ গুনে গুনে
এমন ছড়া লিখবে না যে
কেউ কভু ‘আলপিন’ এ।

আদ্যপান্ত: এই লেখাটা ২৭শে নভেম্বর, ১৯৯৯ইং তে লিখেছিলাম OMECA তে মেডিক্যাল কোচিং করার সময়ে, একটা ক্লাস টেস্টের উত্তরপত্রের পেছনে। বহুদিন পর ওই লেখার ইঁদুরে কাটা পাতাটা খুঁজে পেয়ে ছোট ভাই ব্লগে তুলে দিতে বললো। তাই দিলাম। এখন তো মনে হচ্ছে ছড়াটা লিখেছিলাম দৈনিক প্রথমআলো’র সাপ্তাহিক ক্রোড়পত্র ‘আলপিন’ এ পাঠাবো বলে। পরে হয়তো আর পাঠানোই হয়নি।